বক্তৃতা কি?

বক্তৃতা কি?
আসুন যেনে নেই,
বক্তৃতা একটি শক্তিশালী কৌশল।
 বক্তৃতা একটি আর্ট।
বক্তৃতা অর্থ হচ্ছে বলা, যা ব্যক্ত করা হয়। মুলতঃ বক্তৃতা সমবেত জনমন্ডলীর সম্মুখে বা অডিও, কিংবা অডিও ভিজুয়্যাল, অথবা ইন্টারনেট প্রচার ও যোগাযোগ মাধ্যমের সাহায্যে বিশেষ উদ্দেশ্যে, বিশেষ বিষয়ে এবং জনমন্ডলীকে লক্ষ্য করে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে বিশেষ ভংগিতে উপস্থাপিত সুবিন্যস্ত উক্তি,
 যার উপর নাম বক্তব্য ও আলোচনা।
বক্তৃতা যে কত রকম, কতো বিচিত্র তার ধরন-প্রকৃতি সে হিসেব করা বড় কঠিন।
আমাদের দেশ বা তৃতীয় বিশ্বের অনেক দেশেই বক্তৃতাত বৈচিত্র্য ব্যাকরণ বিচারে বর্ণনা করা প্রায় অসাধ্য তবে কতিপয় প্রকার প্রকরণ তো প্রথায় পরিণত হয়েছে। উদ্দেশ্য আয়োজন ও কাঠামোগত দিক থেকে বক্তৃতার ধরন বৈচিত্র্য নিম্নরূপ -
১) জনসভা বা সমাবেশে নেতা কর্মীদের উদ্দেশ্য বক্তৃতা।
২) অডিও বা অডিও ভিজুয়াল যোগাযোগ মাধ্যমে বক্তৃতা।
৩) পার্লামেন্ট সদস্যদের বক্তৃতা।
৪) দলীয় কর্মী সভায় বক্তৃতা।
৫) দলীয় পরামর্শে ও নির্বাহী কর্মচারীদের উদ্দেশ্য বক্তৃতা।
৬) অধঃস্তন নির্বাহী কর্মচারীদের উদ্দেশ্য বক্তৃতা।
৭) উপ, কমিটিতে সুপারিশ তৈরীর উদ্দেশ্য বক্তৃতা।
৮) মতামত কিংবা আদর্শ প্রচারের উদ্দেশ্য বক্তৃতা।
৯) ছাত্রদের উদ্দেশ্য শ্রেণীকক্ষে শিক্ষকদের বক্তৃতা।
১০) প্রশিক্ষণের উদ্দেশ্য শ্রেণীকক্ষে প্রশিক্ষকের বক্তৃতা।
১১) বিশেষ উদ্দেশ্যে জনতাকে উদ্বুদ্ধ করার জন্য বক্তৃতা।
১২) প্রশিক্ষণ মূলক সপ্তাহিক বক্তৃতা।
১৩) প্রশিক্ষণ মূলক মাসিক বক্তৃতা।
১৪) প্রতিযোগিতা মূলক বক্তৃতা।
১৫) সম্মিলিত বক্তৃতা।
আরো অনেক শ্রেনী আছে।
আমাদের দেশে শ্রেণী ক্ষেত্র ও পরিবেশ ভেদে উপরোক্ত ধরনের বক্তৃতাসমুহ চালু রয়েছে।
নিজ নিজ অবস্থানে প্রকার বক্তৃতারই রয়েছে বিশেষ গুরুত্ব।
উপরে বক্তৃতার যেসব প্রকার প্রকরণের কথা আলোচনা করা হলো, এর মধ্যে আপনি কোন প্রকারের বক্তা?
এতো  প্রকারের মধ্যে আপনি শুধু এক প্রকারের বক্তা। নাকি সর্ব প্রকার বক্তা? তবে আপনার প্রকার যাই হোক, আপনি দক্ষ প্রভাব বিস্তারকারী ও জনপ্রিয় বক্তা হোন। এজন্য কৌশল আয়ত্ব করুন। সময় ও প্রস্তুতির দিক থেকে আপনাকে দুই ধরনের বক্তৃতা করতে হতে  পারে।
১) পূর্ব নির্ধারিত বক্তৃতা Set Speech.
 ২) উপস্থিত বক্তৃতা Extempore Speech.
নির্ধারিত বক্তৃতার ক্ষেত্রে তো আপনি প্রস্তুতি নেবার সুযোগ পাবেন। কিন্তু উপস্থিত বক্তৃতার ক্ষেত্রে সে সুযোগ পাবেন না।আপনি হঠাৎ বক্তৃতা দেওয়ার জন্য আদিষ্ট। তখন আপনাকে উপস্থিত ভাবেই বক্তৃতা দিতে হবে। তাই বক্তৃতার নিয়ম ও কৌশলগুলো আপনার আয়ত্বে থাকা বাঞ্জনীয়।
পরের বিষয়ে আলোচনা করব ইনশাআল্লাহ,
কিভাবে উপস্থিত বক্তৃতার পুর্ব প্রস্তুতি,।
এবং কিভাবে নির্ধারিত বক্তৃতার পূর্ব প্রস্তুতি।
সবাই ভালো থাকেন ধন্যবাদ।
খোদা হাফেজ।
আশা করি অনেক উপকারে আসবে কথা গু।       

0 Comments